করোনায় মৃত ছেলের লাশ রাস্তায় ফেলে গেলেন বাবা

আগমনী ডেস্কঃ   করোনায় মৃত ছেলের লাশ  এলাকায় সৎকার করতে বাধাপ্রাপ্ত হবেন ভেবে বাবা নকুলচন্দ্র দাস ও বড় ভাই অতুল চন্দ্র দাস রাতের কোনও এক সময় পলিথিনে মুড়িয়ে মরদেহ ফেলে যান ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের দেলদুয়ার উপজেলার ডুবাইলে।

ঢাকা-টাঙ্গাইল জেলার কালিহাতী উপজেলার আমজানী গ্রামের চেতন চন্দ্র দাস কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ায় সৎকারের ভয়ে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাশে ডুবাইল নামক স্থানে পলিথিন, কাঁথা এবং চাদর দিয়ে মোড়িয়ে চেতনের মরদেহ ফেলে রেখে যায় বাবা নকুল চন্দ্র দাস ও বড় ভাই অতুল চন্দ্র দাস।

পুলিশ জানায়, ঢাকা এয়ারপোর্ট এলাকায় চেতন চন্দ্র রিকশা চালাতেন। ৬-৭ দিন আগে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। গেল রোববার (১৪ জুন) রাতে তিনি মারা যান। । খবর পেয়ে রোববার সকালেই পুলিশ অজ্ঞাতনামা হিসেবে মরদেহ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পরে টাঙ্গাইল সিআইডি ক্রাইমসিন টিম ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করে।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল দেলদুয়ার থানার (ওসি) এ.কে সাইদুল হক ভুঁইয়া বলেন, মৃত ব্যক্তির পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ঢাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চেতন চন্দ্র দাস মারা যান। বাবা ও বড় ভাই মরদেহ এলাকায় না নিয়ে ডুবাইল এলাকায় ফেলে যান। ময়নাতদন্ত শেষে কাকা পুণ্য চন্দ্রের কাছে মরদেহ হস্তান্তর এবং দাহ করতে খরচ হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা দেয়া হয়।







সম্পাদক ও প্রকাশকঃ জামাল হোসেন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মোঃ মোনাজ্জেল হোসেন খান
নির্বাহী সম্পাদক : নাঈম ইসলাম
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৭কে,মেহেরবা প্লাজা ৩৩ তোপাখানা রোড,ঢাকা
ফোনঃ 01947171171
মেইলঃdailyagomoni2018@gmail.com
প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।